রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৭:১৬ অপরাহ্ন

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য (ভিডিও)

সংবাদ দাতার নাম
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২০ মে, ২০২৪
  • ৬১ বার পড়া হয়েছে

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য (ভিডিও)

Bengal

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ক্ষুদে বিজ্ঞানী সাজ্জাদুল ইসলাম কলাগাছের তন্তু দিয়ে প্লাস্টিক, কার্বন ও সিলিকন পণ্যের বিকল্প ব্যবহারযোগ্য পরিবেশবান্ধব পণ্য তৈরির ফরমুলা আবিষ্কার করেছেন। একই সঙ্গে সে পচা ও অব্যবহৃত সবজির শ্বেতসার থেকে তৈরি করেছে পচনযোগ্য পলিথিন। তার দাবি এটি পরিবেশবান্ধব এবং অনেকটা সাশ্রয়ী।

গুগল নিউজে ফলো করুন

সাজ্জাদুল ইসলাম জানান, ‘শুধু টাইলস নয় তার আবিষ্কৃত কাঁচামাল দিয়ে প্লাস্টিক, কার্বন ও সিলিকনে তৈরি প্লাস্টিকের আসবাবপত্র, টিন, টাইলস ও কার্বনের তৈরি মোটরযানের যন্ত্রাংশের বিকল্প হিসেবে কলাগাছের তন্তু ব্যবহার করা সম্ভব। এমনকি বুলেটপ্রুফ দরজা জানালাও তৈরি করা সম্ভব। আবিষ্কৃত কাঁচামালে ৬৫ শতাংশ কলাগাছের তন্তু ও ৩৫ শতাংশ রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করেই এসব তৈরি করা যায়।

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য

তিনি জানান, তার আবিষ্কৃত প্লাস্টিক পণ্য উচ্চতাপে গলিয়ে সহজেই রাসায়নিক দ্রব্য ও কলাগাছের তন্তু আলাদা করা য়ায়। আর সবজির শ্বেতসার থেকে তৈরি পলিথিন মাটিতে ১ মাসে ও পানিতে ৩ মাসে পচে যাবে; যা মাটির জন্য হবে জৈব সার ও পানিতে হবে মৎস্য খাদ্য।

radhuni

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য

শ্রীমঙ্গল সরকারি কলেজের রসায়ন বিভাগের প্রভাষক হৃদয় কুমার ভৌমিক জানান, তাদের কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী সাজ্জাদুল কলাগাছের সেলুলোজ সমৃদ্ধ তন্তুর হাইডো-অক্সাইড ও রেজিন ব্যবহার করে এক টুকরো টাইলস তৈরি করে এবং আলুর শ্বেতসার থেকে পলিথিন তৈরি করে এনে দেখায়। পরে আমরা সরকারি কলেজের ল্যাব থেকে তাকে এটি করে দেখানোর আহ্বান জানালে কলেজের ল্যাবে এই দুই পণ্য তৈরি করে। এ সময় কলেজের অন্যান্য শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা তা দেখেন।

প্রভাষক হৃদয় কুমার বলেন, ‘সে যে কাঁচামাল ব্যবহার করেছে তা পরিবেশের ভারসাম্যের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। আরও অধিক গবেষণায় এটি ভালো কোনো আবিষ্কার হতে পারে।’

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য

কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক রোমান মিয়া বলেন, ‘যেহেতু এর প্রধান কাঁচামাল কলাগাছ থেকে সংগ্রহ করা হয় এবং কলাগাছ সহজলভ্য; তাই এটির ব্যবহারে গ্লাস ফাইবার ও কার্বন ফাইবারের প্রয়োগ কমবে। আর তার আবিষ্কৃত এ পলিথিন পরিবেশের ওপর অপচনশীল পলিথিনের প্রভাব কমাবে।’

সাজ্জাদুলের মাধ্যমিক বিদ্যালয় শ্রীমঙ্গল মহাজেরাবাদ উচ্চবিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক ও বর্তমান হুগলিয়া হাজী মনছব উল্লাহ উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কামরুল হাছান বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই সাজ্জাদুলের বিজ্ঞানের বিভিন্ন আবিষ্কারে ছিল কৌতুহল। এ থেকেই বিভিন্ন কিছু আবিষ্কারে তার মনোযোগ আসে। সাজ্জাদুল ইতোমধ্যে কলাগাছের তন্তুকে ব্যবহার করে তৈরি করেছে টাইলস আর অব্যবহৃত সবজির শ্বেতসার থেকে তৈরি করেছে পরিবেশবান্ধব পলিথিন।’

শ্রীমঙ্গল সরকারি কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক বিজন চন্দ্র দেবনাথ বলেন, ‘যেহেতু এর প্রধান কাঁচামাল কলাগাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়, তাই এই কাঁচামাল দিয়ে পলিথিন তৈরি করলে পরিবেশের ওপর অপচনশীল প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার কমবে।’

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য

এ বিষয়ে ক্ষুদে বিজ্ঞানী সাজ্জাদুল ইসলাম জানান, কলাগাছের তন্তু থেকে এই কঠিন যৌগ তৈরি করতে তার সর্বোচ্চ ৬৫ ভাগ তন্তু দিলে এর মধ্যে রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রণ হবে। সে জানায়, তার তৈরি টাইলসের ওজন পায় ৩০০ গ্রাম। যার মধ্যে ২০০ গ্রাম কলাগাছের তন্তু ও হাইডোঅক্সাইড ৬০ গ্রাম ও রেজিন ৪০ গ্রাম। সে জানায়, রেজিন ব্যবহার করা হয় এ জন্য যেন দীর্ঘ সময় ধরে এটি না পঁচে এবং হাইডো-অক্সাইড রেজিনের অবস্থানকে আরও শক্তিশালী অবস্থান প্রদান করে।

এই ক্ষুদে বিজ্ঞানী আরও জানান, পরিবেশবান্ধব পলিথিনের জন্য সে ব্যবহার করে বাজারের পরিত্যক্ত সবজি থেকে সংগ্রহকৃত শ্বেতসার, অ্যাসিটিক এসিড ও গ্লিসারল। মোট দ্রবণের ২৫ শতাংশ গ্লিসারল, ২৫ শতাংশ অ্যাসিটিক এসিড, ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ পানি ও বাকিটা সবজির শ্বেতসার।

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য

বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার ফল ও সবজি অপচয় হয়। এই অপচয়কৃত শস্য থেকে প্লাস্টিকের বিকল্প হিসেবে ব্যবহারযোগ্য পণ্য তৈরি করা হলে দেশের অর্থনীতিতে আসতে পারে বড় একটা পরিবর্তন এবং সঙ্গে সঙ্গে কমে আসবে পরিবেশ দূষণ। আর কলাগাছ যেহেতু একবার ফল দেওয়ার পর কেটে ফেলে দিতে হয়। তাই কৃষককে অল্প মূল্য দিয়ে তা সংগ্রহ করে এর দ্বারা প্লাস্টিক, কার্বন ও সিলিকন পণ্যের বিকল্প ব্যবহারযোগ্য পরিবেশবান্ধব পণ্য তৈরি করা সম্ভব।

ইতোপূর্বে সাজ্জাদুল ‘বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা-২০২৪’ এ মৌলভীবাজার জেলা পর্যায়ে বছরের সেরা মেধাবী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে। সে জানায়, সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে সে তার গবেষণা আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে।

কলাগাছের তন্তু থেকে প্লাস্টিক পণ্য

সাজ্জাদুলের বাবা একজন দরিদ্র কৃষক। তার বাবার পক্ষে তার গবেষণার খরচ চালানো সম্ভব নয়। তাই তার এ কাজের উৎসাহ অর্থনৈতিক কারণে সামনের দিকে এগোচ্ছে না। এই মেধাবী ক্ষুদে বিজ্ঞানীকে সরকার কিংবা হৃদয়বান কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান পৃষ্ঠপোষকতা করলে তার দ্বারা ভালো কিছু আবিষ্কার করা সম্ভব বলে আশা প্রকাশ করেন তার শিক্ষকরা।

Nagad

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৩ অপরাহ্ণ
  • ১৬:৪০ অপরাহ্ণ
  • ১৮:৫২ অপরাহ্ণ
  • ২০:১৮ অপরাহ্ণ
  • ৫:১১ পূর্বাহ্ণ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা,ছবি,অডিও,ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।।
Design by: POPULAR HOST BD
themesba-lates1749691102