শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৭:০৭ অপরাহ্ন

নওগাঁয় সাড়া ফেলেছে মাটির কুঁড়েঘর ম্যাংগো রিসোর্ট

সংবাদ দাতার নাম
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৭ আগস্ট, ২০২৩
  • ১২০ বার পড়া হয়েছে

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০২৩

Nagad
Bengal

কৃষিতে রাসায়নিকের ব্যবহার কমাতে প্রাকৃতিক জৈব সারের পরীক্ষা করতে তৈরি করেন কুঁড়েঘর। যেন জৈব সার প্রস্তুতিতে শিক্ষার্থীরা এখানে থেকে তার প্রস্তুত প্রণালী ও ব্যবহার বিধি শিখে তা কৃষি কাজে ব্যবহার করতে পারে। বিশেষ করে বরেন্দ্র অঞ্চলে আম ও ধান চাষে রাসায়নিক ব্যবহার শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসার প্রচেষ্টা থেকে নওগাঁয় তৈরি হয়েছে কুঁড়েঘর ম্যাংগো রিসোর্ট। যা বর্তমানে দেশের ভ্রমণ পিপাসু মানুষের কাছে পর্যটনের একটি অন্যতম স্থান।

গুগল নিউজে ফলো করুন www.dailybangladesherdak.com অনলাইন

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার মুজাহিদুল ইসলাম জাহিদ ২০২১ সালে পোরশা উপজেলার নোনাহার গ্রামে এসে আম বাগান তৈরি করার জন্য স্থানীয় ব্যক্তিদের কাছ থেকে ৬০ বিঘা জমি লিজ নেন। ২২ শতাংশ জমির উপর কুঁড়েঘর ম্যাংগো রিসোর্ট নির্মাণ করেন তিনি। বাকি জমিতে বিভিন্ন জাতের আম, কফি, ফিলিপাইন ব্লাক জাতের আখ, ড্রাগন ফলের বাগানের পাশাপাশি তৈরি করেছেন গরুর খামার।

daraz

প্রথমদিকে বাগান এবং খামার দেখার জন্য দুটি মাটির কুঁড়ে ঘর তৈরি করেন। ঘরের দুটি ছবি ও ভিডিও তিনি তার ফেসবুক এবং নিজস্ব ওয়েবসাইটে পোস্ট করেন। প্রথমদিকে তার বিভিন্ন এলাকার বন্ধু ও আত্মীয়রা এখানে ঘুরতে আসেন। তার ওই দুটি ঘরে বেশি মানুষ থাকতে সমস্যা হলে তিনি পরবর্তীতে আরও কিছু ঘর তৈরি করেন।

নওগাঁয় সাড়া ফেলেছে মাটির কুঁড়েঘর ম্যাংগো রিসোর্ট
Ruchi

গ্রামীণ পরিবেশ, নির্মল বাতাস, নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলা নিকেতন, নানা বৈচিত্র আর সবুজের সমাহার উপভোগ করার জন্য দর্শণার্থীরা এখানে রাত্রি যাপনের ইচ্ছে পোষণ করতেন। প্রতিদিন দর্শণার্থীদের আবদার শুনতে শুনতে বাধ্য হয়ে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে এটিকে দর্শণার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেন মুজাহিদুল ইসলাম জাহিদ। আর এর নাম দেন ‘কুঁড়েঘর ম্যাংগো রিসোর্ট’। দর্শণার্থী ও ভ্রমণপ্রেমীদের চাহিদা মেটাতে বর্তমানে এ রিসোর্টে তৈরি করা হয়েছে ৭টি রুম। এর মধ্যে রয়েছে ২টি ফ্যামিলি রুম, ৪টি সিঙ্গেল রুম ও ১টি কমন রুম।

মুজাহিদুল ইসলাম জাহিদ জানান, পরীক্ষামূলকভাবে প্রথমে এটি চালু করা হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে এখানে সবসময় দর্শনার্থীদের ভীড় লেগেই থাকে। অনেকেই পরিবার নিয়ে আসেন রিসোর্টটিতে রাত্রি যাপন করতে।

মুজাহিদুল আরও জানান, কুঁড়েঘরটি রিসোর্ট হিসেবে ব্যবহার না করে তার ইচ্ছে যারা কৃষি বিষয়গুলো নিয়ে গবেষণা করতে ইচ্ছুক তারা যেন সল্প খরচে এখানে থেকে সে কাজটি করতে পারে সে উদ্দেশ্যটি সফল করা।

কিন্তু দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ভ্রমণ পিপাসু মানুষ এখানে আসে। এখানে তাদের জন্য একসাথে ৭ রুমে ২০ জন থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। একরাত ফ্যামিলি ও কমন রুমের ভাড়া ৬শ টাকা। সিঙ্গেল রুমের ভাড়া ১ জন ২শ’ ও ২ জন ৩শ’ টাকা। এখানে রয়েছে এটাস্ট ও কমন বাথরুম, বিদ্যুৎ,পানি এবং ইন্টারনেট ব্যবস্থা।

বর্তমানে দর্শনার্থীদের কাছে পছন্দের একটি স্থান কুঁড়েঘর ম্যাংগো রিসোর্ট। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দর্শনার্থীরা প্রতিদিন এখানে আসেন। রাজশাহী থেকে কুঁড়েঘরে ঘুরতে আসা নাভানা মুসতারিণ জানান- প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রিসোর্টের ছবি দেখে মুগ্ধ হই। তাই নিজ চোখে দেখতে চলে আসি। এখানে এসে ছবিতে যেমন সুন্দর ভেবেছিলাম তার থেকে অনেক বেশি ভালো লেগেছে। এমন গ্রামীন পরিবেশে সময় কাটাতে পেরে অনেক ভালো লাগছে।

অপরদিকে রিসোর্টিতে বেশ কয়েকজন যুবকের কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে। যা তাদের পড়াশুনার পাশাপাশি রিসোর্টটিতে নানান বিভাগে কাজ করারও সুযোগ তৈরি করেছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৫ পূর্বাহ্ণ
  • ১১:৫৮ পূর্বাহ্ণ
  • ১৬:৩২ অপরাহ্ণ
  • ১৮:৩৭ অপরাহ্ণ
  • ২০:০০ অপরাহ্ণ
  • ৫:১৬ পূর্বাহ্ণ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা,ছবি,অডিও,ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।।
Design by: POPULAR HOST BD
themesba-lates1749691102